চৌগাছায় আওয়ামীলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে ৫ জন আহত

প্রতিবেদক, চৌগাছা ( যশোর) : যশোরের চৌগাছায় আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। ৩১ শে মার্চ উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চৌগাছা সদর ইউনিয়নের বেড়গোবিন্দপুর গ্রামে নৌকা ও আনারস প্রতিকের সমর্থকদের মধ্যে বিবাদমান দ্বন্দ্বের জেরে রবিবার সকালে উভয় পক্ষের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।
এ ঘটনায় আহতরা হলেন বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের আনিছুর রহমানের ছেলে আজাদ হোসেন (২৮), মৃত মহম্মদ আলীর ছেলে ওয়াজেদ আলী (৬০), রোকনুজ্জামানের ছেলে আমিনুর রহমান (১৮), মৃত রহমত আলীর ছেলে হাফিজুর রহমান পিন্টু (৫০), আমিরুল বিশ্বাসের ছেলে হারুন অর রশিদ (৪৫)। আহতরা সকলেই উপজেলা ৫০ শয্যা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন।

হাসপাতালে ভর্তি হাফিজুর রহমানের ভাই ভুট্ট, ওয়াজেদ আলীর ছেলে শাওন এবং হারুন অর রশীদের বৃদ্ধ বাবা আমিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, প্রতিদিনের মত ঘটনার দিন সকাল ৬ টার দিকে কাজ করার জন্য গ্রামের মাঠে যাচ্ছিলেন। পারভেজের বাড়ির নিকটে পৌছালে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে একই গ্রামের বুলবুলির ছেলে পারভেজ, তক্কেলের ছেলে মুনতাজ আলী, মুনতাজ আলীর ছেলে তরিকুল ইসলামসহ ১০/১৫ জন লোহার রড, দা, লাঠি নিয়ে আমাদের উপরে হামলা করে আহত করে।

অন্যদিকে পারভেজ বলেছেন, উপজেলা নির্বাচনে আমরা নৌকায় ভোট দেওয়ার অপরাধে বাড়ি ছাড়া ছিলাম। নৌকার কর্মীরা বাড়ি আসতে দেখে শনিবার সন্ধ্যায় আমাদের বাড়ি বাড়ি যেযে শনিবার রাতের মধ্যে বাড়ি ছাড়ার হুমকি দেয়। বাড়ি ছেড়ে চলে না যাওয়ায় পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ি আজাদ, হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে ১০/১২ জন লোক আমার বাড়ি এসে আমাদের উপরে হামলা করে। এসময় বারবার নির্যাতিত নৌকার কর্মীরা ঘুরে দাড়ালে প্রতিপক্ষের কয়েকজন আহত হয়েছে।

চৌগাছা সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, উপজেলা নির্বাচনের সময়ের নৌকা ও আনারস প্রতিকের সমর্থকদের মধ্যে বিবাদমান দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে এক পক্ষ অন্য পক্ষের উপরে হামলা চালিয়ে আহত করেছে। তিনি এ ঘটনায় প্রকৃত দোষীদের শাস্তি দাবি করেছেন।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী মাসুদ চৌধুরী বলেন, উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতিকে ভোট দেওয়ার অপরাধে বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের নৌকার কর্মীরা নির্যাতিত হয়েছে। এমন কি নৌকায় ভোট দেওয়ার অপরাধে অনেকেই বাড়ি ছাড়তেও বাধ্য হয়েছে। ঘটনার দিন সকালে নৌকার কর্মীদের উপরে আবারো হামলা চালাতে গেলে বারবার নির্যাতিত কর্মীরা হামলা প্রতিহত করতে গেলে এঘটনা ঘটেছে।

চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজিব ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে। এলাকায় পরিবেশ শান্ত রাখতে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতজনকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।