মণিরামপুরে একাত্তরে গণহত্যায় ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি জাদুঘরে হস্তান্তর

ব্যুরো রিপোর্ট: ১৯৭১ সালে যশোরের মণিরামপুরে গণহত্যায় রাজাকার বাহিনী কর্তৃক ব্যবহৃত একটি মোটরসাইকেল খুলনাস্থ ‘গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘরে’ হস্তান্তর করা হয়েছে। সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে মোটরসাইকেলটি হস্তান্তর করেন যশোরের মণিরামপুরের অনিল ঘোষ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গণহত্যা জাদুঘর ট্রাস্টের সভাপতি অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন, ট্রাস্টি ড. চৌধুরী শহিদ কাদের, অনীল কুমার ঘোষের দুই পুত্র বিপ্লব কুমার ঘোষ ও দেবাশীষ কুমার ঘোষ, গণহত্যা জাদুঘর সুহৃদ সভাপতি অমল কুমার গাইন প্রমুখ।
এক বিজ্ঞপ্তিতে গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘরের পরিচালক (প্রশাসন) ড. চৌধুরী শহিদ কাদের জানান, মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর দোসর রাজাকার বাহিনী যশোরের মণিরামপুর উপজেলার শ্রী গিরিন্দ্রনাথ ঘোষের বাড়িটি দখল করে রাজাকার ক্যাম্প ও নির্যাতন কেন্দ্র স্থাপন করে। এই কেন্দ্র থেকেই এই এলাকায় একাত্তরের বিভিন্ন সময়ে রাজাকার বাহিনী গণহত্যা চালায়। সেই দখলকৃত বাড়িতে থাকা গিরিন্দ্রনাথ ঘোষের পুত্র অনীল কুমার ঘোষের ব্যবহৃত একটি মোটরসাইকেল রাজাকার বাহিনী গণহত্যা-নির্যাতনে ব্যবহার করে। মনিরামপুর ও এর আশেপাশের এলাকায় গণহত্যা পরিচালনা ও বিভিন্ন জায়গা থেকে সাধারণ মানুষকে তুলে নিয়ে আসার কাজে রাজাকার বাহিনী এই মোটরসাইকেলটি ব্যবহার করতো। একাত্তরের গণহত্যা-নির্যাতনের স্মৃতিচিহ্নস্বরূপ এই মোটরসাইকেলটি গণহত্যা জাদুঘরে হস্তান্তর করা হয়েছে। এই জাদুঘরে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি বাহিনী কর্তৃক সংঘটিত গণহত্যার বহু দুর্লভ নিদর্শন, ছবি ও দলিল সংরক্ষিত আছে।