যবিপ্রবিতে সংঘর্ষ: ছাত্রলীগের আট নেতাকর্মী আসামি

ব্যুরো রিপোর্ট: ফেসবুকে কমেন্ট করার জেরে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের দুই গ্রæপের সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা হয়েছে। ছাত্রলীগের আট নেতাকর্মীর নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও ১০/১৫জনের নামে বুধবার রাতে কোতয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। মামলার বাদী পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিক খন্দকার।
আসামিরা হলেন- শাখা ছাত্রলীগের উপপ্রচার সম্পাদক শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ইলিয়াস হোসাইন রকি, একই বিভাগের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ কর্মী অন্তর দে শুভ, ফিশারিজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগ ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক ইসমে আজম শুভ, ফিশারিজ এন্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগের ছাত্র নাজমুস সাকিব, শহীদ মসিয়ূর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পুষ্টি ও খাদ্য প্রযুক্তি বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী গোলাম রাব্বানী, একই বিভাগের স্নাতকের শিক্ষার্থী ছাত্রলীগ কর্মী এইচএম মারুফ হাসান, শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী তমারুল ইসলাম তমাল এবং পিইএসএস বিভাগের ছাত্র সুজন। এই মামলার আসামি ইলিয়াস হোসেন রকিকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। তাকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।
বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. আনোয়ার হোসেন জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্ম দিবস বন্ধ থাকায় তদন্ত কমিটি করতে পারিনি। শনিবার অবশ্যই তদন্ত কমিটি করবো। দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে ছাত্রলীগ কর্মী মারুফ হাসান ফেসবুকে শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়াবিজ্ঞান বিভাগের এক ছাত্রী ও গণিত বিভাগের ছাত্র জুয়েল রানার অশালীন ও আপত্তিকর মন্তব্যের স্ক্রিনশট দিয়ে বিচার চেয়ে স্ট্যাটাস দেন। এর জের ধরে বুধবার ছাত্রলীগ কর্মী অন্তর দে শুভ ও তার অনুসারীরা জুয়েল রানার সঙ্গে বাকবিÐায় জড়িয়ে পড়েন। ছাত্রলীগ কর্মী কামরুল হাসান শিহাব বাধা দিতে আসলে কথা কাটাকাটি হয়। এ সময় তার ওপরও হামলা করে অন্তর দে শুভর অনুসারীরা। পরবর্তীতে শাখা ছাত্রলীগের উপ-প্রচার সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন রকির নেতৃত্বে পেট্রোলিয়াম ও মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিক খন্দকারের ওপর হামলা চালায়। এই ঘটনায় দুই পক্ষের অন্তত পাঁচজন নেতাকর্মী আহত হন। এই ঘটনায় বুধবার রাতে ৮জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ১০/১৫জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন আশিক খন্দকার। এই মামলার আসামি ইলিয়াস হোসাইন রকিকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করেছে পুলিশ।
অভিযোগ প্রসঙ্গে ফিশারিজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগ ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক ইসমে আজম শুভ বলেন, সংগঠনের বিষয়ে মারামারি হয়নি। এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করেছি। এজন্য আমাদের উপর হামলা করা হয়েছে। আমরা কারো মারপিট করি নাই। উল্টো আমাদের নামেই মামলা করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জানতে চাইলে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান বলেন, ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় একটি অভিযোগ পেয়েছি। বুধবার রাতে মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। ওই মামলার আসামি ইলিয়াস হোসাইন রকিকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। বাকী আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।
ওসি মনিরুজ্জামান আরও বলেন, শুনেছি ছাত্রলীগের আরেক পক্ষ অভিযোগ দিবে। তবে এখনও পর্যন্ত পাইনি।