বেনাপোলে কাউন্সিলর রাশেদ হত্যাপ্রচেষ্টা মামলা: পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ

ব্যুরো রিপোর্ট: বেনাপোল পৌরসভার কাউন্সিলর রাশেদ আলীকে হত্যা প্রচেষ্টার অভিযোগে যশোর আদালতে মামলা হয়েছে। রোববার জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বেনাপোল আমলী আদালতে ১৭জনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। রাশেদ আলী নিজেই মামলা করেছেন। বিচারক অভিযোগ আমলে নিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। আগামি ২ডিসেম্বরের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।
আসামিরা হলেন-বেনাপোল পোর্ট থানার রঘুনাথপুর গ্রামের লিয়াকত আলীর ছেলে বেল্টু মিয়া, গাজীপুর গ্রামের ছাত্তারের ছেলে ওহেদুজ্জমান, ছোট আড়চা গ্রামের মৃত জিল্লু মিয়ার ছেলে রাজু আহম্মেদ, দৌলতপুর গ্রামের সাহেব আলীর ছেলে আরিফুল ইসলাম, মৃত কেরামত মল্লিকের ছেলে রশিদ মল্লিক, শামসুর রহমানের ছেলে নাসির উদ্দিন, রঘুনাথপুর গ্রামের আমিন বক্সের ছেলে মিকাইল হোসেন, ছোটআঁচড়া গ্রামের মৃত আকবর আলীর ছেলে বাবু সরদার, বাওড়কান্দা গ্রামের লিয়াকত আলীর ছেলে রাজু মিয়া, রঘুনাথপুর গ্রামের জানিত মিয়ার ছেলে দুল্লি মিয়া, দৌলতপুর গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে শরিফুল ইসলাম, রাজাপুর গ্রামের মৃত ইউনুচ আলীর ছেলে আব্দুর রহমান, খড়িডাঙ্গা গ্রামের দ্বীন ইসলামের ছেলে আবুল কালাম, মৃত হারান মোল্যার ছেলে শওকত আলী, মৃত আনছার আলীর ছেলে শাহাজুল হোসেন, বেনাপোলের মৃত জমা আলী মোড়লের ছেলে সিরাজুল ইসলাম ও কাগমারি গ্রামের মৃত নুরুল হক মাস্টারের ছেলে মো. শামসুর।
বাদীর অভিযোগ, প্রতিদিন সকালের মত গত ২৮ অক্টোবর বাদী বেনাপোল পৌর ট্রাক টার্মিনালের ভিতরে মাছের খামারে মাছের খাবার দিতে যাওয়ার পথে নয়টি মোটর সাইকেল এসে প্রাইভেট কারে ধাক্কা দেয় আসামিরা। এসময় বাদীকে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথায় কোপ মারে আসামিরা। হত্যার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে বাদীকে গাড়ি থেকে বের
করে কিল ঘুষি লাথি মারতে শুরু করে। এসময় বাদীর ৫০ হাজার টাকা ছিনতাই করে আসামিরা। বাদী প্রাণের ভয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে আসামি বাদীকে লক্ষ্য করে দুটি বোমা নিক্ষেপ করে। বাদী মাটিতে শুয়ে পড়লে বোমা লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। বোমার বিকট শব্দে এলাকার লোকজন ঘটনাস্থলে এগিয়ে আসলে চারটি আসামিরা পালিয়ে যায়। পালাবার সময় আসামি আবুল কালামকে ধরে মোটরসাইকেলসহ পুলিশের কাছে তুলে দেন। পরবর্তীতে পুলিশ তাকেও ছেড়ে দিয়েছে। #