আইলার চেয়ে শক্তিশালী ‘বুলবুল’

ব্যুরো রিপোর্ট: দীর্ঘ ১০ বছর পর ফের পরীক্ষার মুখে বাংলাদেশ। ২০০৯ সালের ২৫ মে আঘাত হেনেছিল অতি ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় আইলা। শনিবার সন্ধ্যা কিংবা মধ্যরাতে আবারও সেরকম অতি ভয়ঙ্কর এক ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশের ওপর দিয়ে বয়ে যেতে পারে। আবহাওয়া অধিদফতরের কর্তারা বলছেন, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের গতি থাকবে আয়লার মতোই, ঘণ্টায় ১২৫ কিলোমিটার! ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ প্রবল থেকে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে ইতিমধ্যে। শুক্রবার সন্ধ্যায় পায়রা সমুদ্রবন্দর এলাকা থেকে এটি ৪৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এ কারণে চট্টগ্রাম বন্দরে ৬ নম্বর এবং পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় বুলবুল ঘণ্টায় ১২৫ কিলোমিটার বেগের বাতাসের শক্তি নিয়ে ধেয়ে আসছে উপকূলের দিকে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমান বলেছেন, শনিবার (৯ নভেম্বর) সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাতের মধ্যে এ ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানতে পারে।
ধেয়ে আসা ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় চট্টগ্রাম বন্দরে জরুরি সভা করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেল ৫টায় জরুরি সভায় চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পণ্য খালাস বন্ধ রেখে পরবর্তী পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের সিদ্ধান্ত হয়। এদিকে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চট্টগ্রাম ও আশপাশের এলাকায় ৬ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সচিব ওমর ফারুক বলেন, বিকেলে জরুরি সভার ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলার প্রস্তুতি গ্রহণ করেন চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ।