লবনে কারসাজি: যশোরে চার বিক্রেতাকে জরিমানা

ব্যুরো রিপোর্ট: যশোরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে দুইদিনে চার লবন বিক্রেতা জরিমানা করা হয়েছে। বুধবার বেলা ১টার দিকে যশোরের এনডিসি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী নাজিব হাসান শহরের হাটখোলা রোড আটাপট্রিতে অভিযান চালিয়ে দুই প্রতিষ্ঠানকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
আদালতের পেশকার শেখ জালাল উদ্দিন বলেন, আদালত অভিযানকালে দেখতে পান শহরের হাটখোলা রোড আটাপট্রিতে অঙ্কিতা স্টোরে লবণ মজুদ রেখে তা বেশি দামে বিক্রি করা হচ্ছে।এনডিসি কাজী নাজিব হাসান প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার অশোক কুমার মণ্ডলকে ২০০৯ সালের জাতীয় ভোক্তাধিকার সংরক্ষণ আইনের ৩৮ ধারায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে তা আদায় করেন। এরআগে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে শহরের ষষ্টীতলায় উজ্জ্বলের দোকানে অভিযান চালিয়ে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করে তা আদায় করেন তিনি।
অপরদিকে, মঙ্গলবার রাতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে যশোর শহরের দুটি প্রতিষ্ঠানে ১১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের পেশকার শেখ জালালউদ্দিন জানান, মঙ্গলবার রাতে শহরের জেল রোড এলাকায় ‘ভাই ভাই স্টোর’ অভিযান পরিচালনা করেন এনডিসি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী নাজিব হাসান। বেশি দামে লবন বিক্রি করায় ওই প্রতিষ্ঠান মালিককে দশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অপরদিকে, শহরের পুরাতন কসবা চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড বাজারের সোহরাবের দোকানে অভিযান চালানো হয়। সেখানে লবণের অতিরিক্ত দাম নেওয়ায় এক হাজার টাকা জরিমানা করে তা আদায় করা হয়।
বিক্রেতারা বলছেন, গুজবের কারণে লবণ বিক্রি বেড়ে গেছে। লবণ দিতে রাজি না হলে ক্রেতারা চাপাচাপি করছেন বলে অভিযোগ করেন তারা। তবে লবণের দাম বাড়েনি ও সংকট নেই। শুধু গুজবের কারণে মানুষ বেশি বেশি লবণ কিনছেন।
এদিকে, গুজবে কান না দিতে বাজারে নেমে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তারা মানুষকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছেন।