তিন শতাধিক শিশুর তালপাতায় হাতেখড়ি

ব্যুরো রিপোর্ট: সমাজের আলোকিত মানুষের হাতের ছোঁয়ায় তালপাতায় ‘বর্ণ’ লিখে তিন শতাধিক কোমলতি শিশুর হাতেখড়ি হয়েছে। হাতেখড়ির ঐহিত্যবাহী ধরে রাখার প্রয়াসে উদীচী যশোরের আয়োজনে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে যশোর আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজ মাঠে উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীর পেশার আলোকিত মানুষেরা শিশুদের হাত ধরে তালাপাতার উপর লিখে তাদের বিদ্যা অর্জনের শুভ সূচনা করেন। হাতেখড়ি উৎসবে নবীন, প্রবীণ, শিশু ও তার অভিভাবকদের মিলনমেলায় পরিনত হয়।
জাতীয় সংগীত ও উদীচীর সংগঠনের সংগীতে শুরু হয় হাতেখড়ি উৎসবের আনুষ্ঠানিকতা। উৎসব উদ্বোধন করেন উদীচী যশোরের উপদেষ্টা অ্যাড. কাজী আব্দুস শহীদ লাল। সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহাবুবুর রহমান মজনুর সভাপতিত্বে উৎসবে উপস্থিত ছিলেন প্রবীণ শিক্ষক তারাপদ দাস, আব্দুল হালিম, আমিরুল ইসলাম রন্টু, এলাহদাদ খান, জেলা সহকারী প্রাথমিক কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন, সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজের সাবেক অধ্যাপক আসাদুজ্জামান, সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার সিরাজুল ইসলাম, আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের অধ্যক্ষ জেএম ইকবাল হোসেন, যশোর কলেজের অধ্যক্ষ মুস্তাক হোসেন শিম্বা উদীচী যশোরের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান খান বিপ্লব। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন ন্যাশনাল প্রি ক্যাডেট এন্ড হাই স্কুল যশোরের অধ্যক্ষ কাজী জাহাঙ্গীর আলম লিপু, হাতেখড়ি উৎসব কমিটির আহŸায়ক রজিবুল ইসলাম টিলন, অক্ষর শিশু শিক্ষালয়ের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ চামেলী মুখার্জ্জী।
উদীচী যশোরের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান খান বিপ্লব জানান, ২০১১ সাল থেকে উদীচী যশোরের উদ্যোগে হাতেখড়ি উৎসবের আয়োজন করা হচ্ছে। সর্বসাধারণের মধ্যে বিকশিত করতে এ উৎসব আয়োজনের প্রায়াস অব্যাহত থাকবে।
এদিকে, শিশুর অভিভাবক শহরের শংকরপুরের বাসিন্দা ইয়াসমিন আক্তার লাবনী তার একমাত্র মেয়ে মিনহা রহমান সুপ্তকে নিয়ে এসেছেন শিশুদের এ উৎসব সমাবেশে। তিনি জানান, ‘গুণিজনদের হাত ধরে লেখাপাড়ার যাত্রা শুরু হওয়ায় মেয়ে খুব খুশি, মেয়ের খুশিতে আমিও খুশি’। তিনি বলেন, এমন আয়োজন যত বেশি হবে ততই সমাজের জন্য সুখকর হবে। সমৃদ্ধ হবে সমাজ ব্যবস্থা। চাকরিজীবী হুমায়ুন কবির ও গৃহীনি কাজী তানিয়া জানান, চার বছর বয়সী সন্তান তাসকিনকে নিয়ে এসেছি এ উৎসবে সামিল হতে। ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের এমন পরিবেশে পেয়ে খুব ভাল লাগছে। এমন আয়োজনের ধারাবাহিকতা থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এমনই অনুভূতি প্রকাশ করেন অক্ষর শিশু শিক্ষালয়ের নতুন শিক্ষার্থী মাহিন আহমেদ, প্রণব রাহা তোজো, সামিয়া ইসলাম রূপন্তি, নবনীতা সেন, আরিশা আয়জা, আহনাফ মুত্তাকিন, আরাধ্যা রায়, আরিশা মির্জা, সোহানা খান অহনা, সাঁই সাহা, অঙ্কিতা দত্ত, অরুনিমা মজুমদার, এঞ্জেলা, আজওয়াদ আমিন ইসলাম, জাহিন হাসান রায়াদের অভিভাবকবৃন্দ।