সিজারে করোনা পজেটিভ নারীর সন্তান প্রসব

ব্যুরো রিপোর্ট: যশোরের চৌগাছার করোনা পজেটিভ নারী জান্নাতী (২৮) নিরাপদে কন্যা সন্তান প্রসব করেছেন। বুধবার দুপুরে যশোর শহরের জেনেসিস প্রাইভেট হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনে তিনি নিজের ২য় কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। হাসপাতালে তার অপারেশন করেন যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের গাইনী চিকিৎসক ডা. নিলুফার ইয়াসমিন এমিলি। জান্নাতী চৌগাছা উপজেলার পাশাপোল ইউনিয়নের বানুড়হুদা গ্রামের আলমগীর হোসেনের স্ত্রী। গত ২৫ এপ্রিল করোনা সনাক্তের পর তার বাড়িতেই তাকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল।

ডা. নিলুফার ইয়াসমিন মোবাইল ফোনে বলেন, আমরা তো সবসময়ই সিজার করি। প্রথম করোনা পজেটিভ হওয়ায় একটু ভয় লেগেছে। একটু টেনশন নিয়ে করতে হয়েছে। করোনা পজেটিভ প্রসূতি হওয়ায় রিস্কি ছিল। সতর্ক থাকতে হয়েছে। প্রস্তুতি নিতে হয়েছে। তবুও করতে তো হবেই। এটাতো আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য। সব প্রস্তুতি ও প্রটেকশন নিয়েই সিজার সম্পন্ন হয়েছে। কোন সমস্যা হয়নি। মা ও বাচ্চা দুজনেই সুস্থ আছেন।

চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লুৎফুন্নাহার  বলেন. পরপর দুবার তার করোনা পরীক্ষা নেগেটিভ আসায় তাকে করোনা মুক্ত ছাড়পত্র ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। পরে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তির পর পরীক্ষায় আবারো করোনা পজেটিভ হন তিনি। পজেটিভ অবস্থায়ই বুধবার তার সিজারিয়ান অপারেশন সম্পন্ন হয়। তিনি বলেন প্রসূতি ও বাচ্চা উভয়েই সুস্থ আছেন।

জান্নাতীর স্বামী আলমগীর হোসেন বলেন, আমি সিজার অপারেশন করা ডাক্তারসহ সকল ডাক্তারদের কাছে কৃতজ্ঞ। বিশেষ করে চৌগাছা হাসপাতালের বড় ম্যাডাম (স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লুৎফুন্নাহার) সব সময় আমাকে খোঁজ নিয়েছেন। সাহস দিয়েছেন। এমনকি ওষুধের ব্যবস্থাও করে দিয়েছেন। বিকেল চারটায় তিনি জানান বাচ্চা ও মা উভয়েই সুস্থ আছেন। তার স্ত্রী এখন ঘুমাচ্ছেন।

গত ২৫ এপ্রিল করোনা সনাক্তের পর তার বাড়িতেই তাকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল। ৯ মে বিকালে ওই নারীকে করোনামুক্তি ছাড়পত্র ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে করোনামুক্ত ঘোষণা করেন যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহিন। সেদিনই তার প্রেগনেন্সি ডেলিভারী ডেট থাকায় সন্ধ্যায় জান্নাতীকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করে দেন চৌগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. লুৎফুন্নাহার লাকি। এরপর হাসপাতালের চিকিৎসকরা আবারো তার করোনা উপসর্গ আছে বলে সন্দেহ হওয়ায় সোমবার তার করোনা নমুনা পরীক্ষার জন্য যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টারে পাঠান।
পরীক্ষায় আবারো তার করোনা পজেটিভ হয়। এরপর যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের কোভিড-১৯ মোকাবেলায় গঠিত বিশেষ প্রসূতি টিমের তত্বাবধানে বিশেষ ব্যবস্থায় সিজারিয়ান অপারেশনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বুধবার দুপুরে শহরের জেনেসিস প্রাইভেট হাসপাতালে তার সিজার সম্পন্ন হয়।